উক্তি ও বাণী

আব্দুল কাদির জিলানি ইরানের তাবারিস্তানের জীলান শহরে জন্মগ্রহন করেন। তিনি ১৮ মার্চ ১০৭৮ ( ১ রমজান ৪৭০ হিজরি ) সালে  বাগদাদ নগরের জীলান শহরেই জন্মগ্রহন করেনতিনি বিভিন্ন উপাধীতে পরিচিত ছিলেন যেমনঃ মুহিউদ্দীন, সুলতানুল আউলিয়া, গাউসুল আযম,গাউসে পাক ইত্যাদি। তাঁর মাতা ছিলেন হাসান আলীর বংশধর। আব্দুল কাদের জিলানী হলেন ইসলাম ধর্মের অন্যতম প্রধান আধ্যাত্মিক ব্যক্তিত্ত্বের একজন মানুষ।
তিনি কাব্য, সাহিত্য, ইতিহাস, ভূগোল ইত্যাদি বিষয়ের পণ্ডিত ছিলেন। তাঁর অনেক বই রচিত হয়েছে তার মধ্যে ফতহুর রবযানী,ফতহুল গায়ের গুনিয়াতুত তালেবীন এই সব বই অনেক উল্লেখযোগ্য। তাঁর জীবনে ইসলাম ধর্ম নিয়ে অনেক বাখ্যা মানুষের কাছে নিয়ে গেছেন। তিনি ছিলেন ইসলাম বিশ্বের অন্যতম এক সম্মানিত ব্যক্তি।
তিনি ১৪ ফেব্রুয়ারী ১১৬৬ (১১ রবিউস সানি ৫৬১ হিজরি) সালে মৃত্যুবরণ করে। মৃত্যু কালে উনার বয়স ছিল ৯১ বছর। আত্মপ্রকাশের আজকের আয়োজনে থাকছে আব্দুল কাদির জিলানির উক্তি ও বহুল পরিচিত ও জনপ্রিয় বানী সমাবেশ।

আবুল কাদির জিলানির উক্তি ও বাণী সমাবেশ

যেকোনো মানুষকে অনুপ্রাণিত ও প্রভাবিত করতে পারেন আব্দুল কাদির জিলানির উক্তি ও বাণীগুলো। তাঁর উক্তিগুলো দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে।

আব্দুল কাদির জিলানির জীবনবোধ উক্তি

সুন্দর এবং সরল জীবনবোধের কারণে আব্দুল কাদির জিলানি শুরু থেকেই মানুষের মনে জায়গা করে নিয়েছিলেন। তাঁর প্রতিটি বাণীতে আমরা তাঁর চমৎকার জীবনবোধের সন্ধান পাই। জীবন নিয়ে আব্দুল কাদির জিলানির উক্তি ও বাণীসমূহ নিম্নরুপ।

জীবন-নিয়ে-আব্দুল-কাদির-জিলানির-বাণী-ও-উক্তি-abdul-kadir-jilani-bengali-life-quotes-in-bangla-bani (1)-min

আব্দুল কাদির জিলানি উক্তি

“আপনার বলা কথাগুলোই প্রকাশ দিবে আপনার অন্তরের গভীরে কী আছে।”

“কু-সঙ্গের  চেয়ে  নিঃসংতা  অনেক ভালো”

“নিজের কল্যাণের স্বার্থে এবং আযাব থেকে রেহাই পেতে যথাসম্ভব কম কথা বল।“

“কারও ঘৃণা ও বিদ্বেষে এমনকি একটি রাতও ব্যয় করবেন না।“

“আপনার সত্যিকারের বন্ধু তিনিই যিনি আপনাকে এইখানে আপনার যত্ন নেওয়ার জন্য সতর্ক করে দিয়েছেন।“

ধর্ম-নিয়ে-আব্দুল-কাদির-জিলানির-বাণী-ও-উক্তি-abdul-kadir-jilani-bengali-life-quotes-in-bangla-bani

আব্দুল কাদির জিলানি বাণী

“যতক্ষণ না এই পৃথিবীতে একটি পরমাণু থাকে এবং যেকোন প্রাণীর জন্য আকাঙ্ক্ষা হয় ততক্ষণ এই হৃদয় সত্যের অযোগ্যে।“

“সমস্ত মুলতার সামগ্রীর যোগফল হ’ল জ্ঞান সন্ধান করা, তার উপর অনুশীলন করা এবং এমন কাউকে শেখানো।“

“আপনার জীবিকা নির্বাহের মাধ্যম হিসাবে ধর্মকে  ব্যবহার  করবেন না।”

“আপনি কি জীবনের সন্ধান পান না? যদি তা না হয় তবে আপনার অবশ্যই সময় নষ্ট করা উচিত নয়, কারণ জীবন হলো সময়ের তৈরি পোশাক।“

“সাক্ষাৎ প্রার্থীর সাথে স্নিগ্ধ ও মার্জিত ব্যবহার এবং প্রফুল্ল বদন ও সন্তুষ্টচিত্তে দর্শন দান করা।”

 

“আপনার যৌবনের চেহারা দ্বারা বোকা বানাবেন না খুব শীঘ্রই এটি আপনার কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া হবে।“

জীবন এবং জীবনবোধ নিয়ে অন্যান্য মনীষীদের উক্তি ও বাণীগুলো নিম্নরুপ লিংকে দেখে নিতে পারেন।

আব্দুল কাদির জিলানির ধর্মীয় উক্তি

সৃষ্টিকর্তা আল্লাহ এবং তাঁর ইসলাম ধর্মকে বুকের মধ্যে লালন করে ছড়িয়েছেন আলো। প্রতিটি মূহুর্তে , প্রতিটি পদে তিনি আল্লাহকে খুঁজে পেয়েছেন, তাঁর সন্ধান করেছেন। আব্দুল কাদির জিলানির ধর্মীয় উক্তি ও বাণীগুলো আমাদের সৃষ্টিকর্তা আল্লাহকে অস্তিত্ব অনুধাবন করতে সহায়ক হবে।

ধর্ম-নিয়ে-আব্দুল-কাদির-জিলানির-বাণী-ও-উক্তি-abdul-kadir-jilani-religion-quotes-in-bangla-ukti-bani-

আব্দুল কাদির জিলানি বাণী

“আপনার অহংকারকে নয় আপনার হৃদয়কে শুনুন। আপনার অহংকার আপনাকে, এই পৃথিবীর গৌরব অর্জনের জন্য নিরর্থক দৃর তার গর্ব করার জন্য অনুরোধ করে। অহঙ্কার থেকে দূরে সরে যান এবং আপনার হৃদয় এবং আত্মার অবসরে তাঁকে সন্ধান করুন।“

“যারা প্রভুর সাথে মেলামেশা উপভোগ করে তাদের সহযোগিতা সন্ধান করুন।“

“অন্যকে আলো দেয় এমন মোমবাতি হয়ে উঠবেন না তবে নিজে অন্ধকারে রয়েছেন। আপনার নিজের ইচ্ছাগুলি অনুসরণ করবেন না। প্রভু যদি চান তবে তিনি নিজেই আপনাকে বেছে নেবেন এবং আপনাকে পরিচলনের উৎস হতে অনুরোধ করবেন। তিনি নিজেই আপনাকে ভাগ্যের পরিবর্তনগুলি সহ্য করার জন্য অভ্যন্তরীণ শক্তি দিয়েছিলেন এবং আপনার মধ্যে অসীম প্রজ্ঞা জাগিয়ে তুলবেন।“

“আপনি বিশ্বাসকে কীভাবে দাবি করতে পারেন, যখন আপনার কোনও ধৈর্য নেই। নিশ্চয়ই আপনি নবীর উক্তিটি শুনেছেন, শান্তি ও দোয়া তাঁর উপর “ধৈর্য বিশ্বাসের, যেমন মাথা শরীরের দিকে থাকে।”

“হে আপনারা যারা আপনার দুর্ভাগ্য সম্পর্কে লোকদের কাছে অভিযোগ করেন, আপনি প্রাণীদের কাছে অভিযোগ করার পক্ষে ভাল কি হবে? তারা আপনার উপকার ও ক্ষতি করতে পারে না। যদি আপনি তাদের উপর নির্ভর করেন এবং সত্য রবের সাথে অংশীদার হন তবে তারা আপনাকে তাঁর কাছ থেকে দূরে সরিয়ে দেবে, আপনাকে তাঁর অসন্তুষ্টিতে ফেলবে।”

“অসম্মান স্রষ্টার এবং সৃষ্টির অসন্তুষ্টি অর্জন করে।“

ধর্ম-নিয়ে-আব্দুল-কাদির-জিলানির-ও-উক্তি-বাণী-abdul-kadir-jilani-religion-quotes-in-bangla-ukti-bani-min

আব্দুল কাদির জিলানি বাণী

“কিছু দুর্ভাগ্যের কারণে সৃষ্টিকর্তার কাছ থেকে দূরে সরে যাবেন না, কারণ তিনি আপনার সাথে এটি পরীক্ষা করছেন।”

“আপনি যদি অজ্ঞদের সংগে বসে থাকেন তবে তাদের অজ্ঞতা আপনাকে আবদ্ধ করবে।“

“নিজের প্রতি বিশ্বাস রাখুন, এর চেয়ে ভাল আর কিছু নেই!’

“আপনার সবচেয়ে শত্রুই হ’লো আপনার সবচেয়ে বড় সমর্থক।“

“ক্ষমা করা মুমিনের সর্বশ্রেষ্ঠ গুণ।“

ধর্ম-নিয়ে-আব্দুল-কাদির-জিলানির-ও-উক্তি-বাণী-abdul-kadir-jilani-religion-quotes-in-bangla-ukti-bani-min

আব্দুল কাদির জিলানি
উক্তি

“আপনার দেহটি দাসদের সাথে রয়েছে তা নিশ্চিত করার জন্য সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করুন তবে আপনার হৃদয় বান্দাদের প্রভুর কাছে।“

“অপ্রয়োজনীয় প্রশ্নের উত্তরে আপনার মুখ বন্ধ রাখুন যাতে আপনি অপ্রয়োজনীয় কথাবার্তা থেকে নিরাপদ থাকতে পারেন।“

“যদি  কেউ আল্লাহর সন্ধান করে সে অবশ্যই তাকে খুঁজে পাবে।“

“একজন সাধারণ মাখলুক! একজন সাধারণ
নারী! সেও তার ভালোবাসায় অংশীদারিত্ব
মেনে নিতে পারছে না। একবার চিন্তা করুন, সমগ্র
জাহানের বাদশাহ, সৃষ্টিকর্তা, পালনকর্তা, আল্লাহ্
তায়ালা তিনি কীভাবে নিজের অংশীদারিত্ব
মেনে নিবেন?”

ধর্ম-নিয়ে-আব্দুল-কাদির-জিলানির-বাণী-উক্তি-abdul-kadir-jilani-religion-quotes-in-bangal-bangla-bani-min

আব্দুল কাদির জিলানি বাণী

“তুমি তোমার আমলনামার পাতাগুলো আড্ডাবাজি দিয়ে পূর্ণ করো না। কেননা, চূড়ান্ত হিসাব-নিকাশের দিনে যে বিষয়টি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে তা হল তোমার জীবনে আল্লাহকে স্মরণ করার মুহূর্তগুলো।”

“যখন কোন বান্দা আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে, সেটা আসলে কেবল মুখে উচ্চারিত কোন বিষয় থাকে না, বরং আল্লাহর করুণা ও রহমত প্রাপ্তির কৃতজ্ঞতা স্বীকার অন্তর থেকেও করা হয়।”

“শরীয়তে পরিপূর্ণ জ্ঞানসম্পন্ন আলেম হওয়া।“

“ই’লমে হাকীকত সম্পর্কে পূর্ণজ্ঞান থাকা।“

“দীন-হীনদের সাথে কথায় ও কাজে নম্রতাপূর্ণ ব্যবহার করা।“
“ভক্তবৃন্দের অন্তরের ব্যাধিসমূহ নির্ধারণপূর্বক তা দূরীকরণের উপায় সম্বন্ধে অভিজ্ঞ হওয়া। নিজেকে রিয়া, হিংসা-বিদ্বেষ, লোভ-লালসা, গর্ব-অহমিকা ইত্যাদি থেকে মুক্ত রাখা, কর্তব্যকর্মে শৈথিল্য এবং আরামপ্রিয়তা দূরীভূত করা।“
“তোমরা সর্বাগ্রে ই’লমে শরীয়ত হাসিল কর, অতঃপর নির্জনতা অবলম্বন কর।“
“যারা আল্লাহর প্রকৃত পরিচয় লাভে ব্যর্থ হয়েছে, কেবল এ ধরনের লোকেরাই আল্লাহ ছাড়া অন্যের নিকট তাদের প্রয়োজন পূরণের প্রার্থনায় মনোনিবেশ করে থাকে।“

আল-গাওথ আল-আযমাম (আর। এ) এর ভিজা নার্স জানায় যে সে যখন শিশু ছিল, তখন সে তাকে তার কোলে নিয়ে যেত কিন্তু হঠাৎ করেই দেখতে পেত যে সে আর নেই। তিনি রিপোর্ট করেছেন যে তিনি লক্ষ করেছেন যে তিনি আকাশে উড়ে এসে সূর্যের রশ্মির আড়ালে লুকিয়ে ছিলেন। একবার, যখন শেখ আবদুল কাদির জিলানী (র।) খুব বড় হয়েছিলেন, তখন ভিজা নার্স তাঁর কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করেছিলেন যে তিনি যখন শিশু ছিলেন তখন তিনি যেমন করতেন তেমনি এখনও তিনি কাজ করেছেন কিনা, অন্য কথায়, সূর্যের আড়ালে লুকিয়ে আছেন। শায়খ আবদুল কাদির জিলানী (র।) জবাব দিয়েছিলেন, “তখন আমি শিশু ছিলাম, এবং এটি দুর্বলতার সময় ছিল এবং আমি সূর্যের রশ্মিতে লুকিয়ে থাকতাম। এখন আমার শক্তি এবং শক্তি এত বিশাল, যে যদি হাজার হাজার সূর্য আসতে হয় তবে তারা আমার দ্বারা লুকিয়ে থাকার চেয়ে তারা সমস্তই আমার মধ্যে লুকিয়ে থাকবে ।”

আব্দুল কাদির জিলানি (রহঃ) তাঁর পুরো জীবন আল্লাহ এবং তাঁর নবীকে ভালোবাসে কাটিয়েছেন। তাঁর চমৎকার জীবনবোধের দরূন তিনি সহজেই মানুষের গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করেন। আব্দুল কাদির জিলানির উক্তি ও বাণী মানুষকে যুগে যুগে পথ দেখিয়েছেন, ভবিষ্যতেও থাকবে।

Facebook